রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ১০:০০ পূর্বাহ্ন

আখাউড়ায় রেলওয়ে জংশন স্টেশনে মিললো করোনায় আক্রান্ত  সুলতান মিয়া নামক এক ভবঘুরে  

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২০, ৮.০৩ পিএম
  • ৯০ বার পঠিত

ইসমাঈল হোসেন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) : পূর্বাঞ্চল রেলপথের আখাউড়ায় রেলওয়ে জংশন স্টেশনে সুলতান মিয়া (৪৫) নামক এক ভবঘুরে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সোমবার (২৭ এপ্রিল) আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সুলতানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল টিমের কর্মীরা অ্যাম্বুল্যান্সে করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইসোলেশনে নিয়ে যায়। তার বাড়ি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার হরিচর গ্রামে। এ নিয়ে আখাউড়ায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৫ জনে দাড়িয়েছে।

জানাগেছে, আখাউড়ায় রেলওয়ে জংশন স্টেশনের ভবঘুরে বাসিন্দা সুলতান মিয়া। সম্প্রতি সে আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনে অসুস্থ হয়ে পড়ে। স্থানীয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিক্যাল টিমকে খবর দেয়। ২২ এপ্রিল ওই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় সোমবার সকালে পজিটিভ আসে।ওই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্তের খবরে দুপুরে রেলওয়ে স্টেশন থেকে তাকে খোঁজে বের করে আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা। পরে তাকে আইসোলেশনে রাখার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বক্ষ ব্যধি হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা জানান, স্টেশনের ওই ভবঘুরে ব্যক্তির করোনা পরীক্ষায় পজেটিভ রেজাল্ট আসায় তাকে খুঁজে বের করে আইসোলেশনে পাঠানো হয়। তিনি বলেন, তার সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন তাদেরও খোজ নেয়া হচ্ছে। আখাউড়া উপজেলার ধরখারের রাণীখার, মোগড়া ইউনিয়নের গঙ্গানগর, চরনারায়নপুর, উত্তর ইউনিয়নের আমোদাবাদ এবং পৌরশহরের দেবগ্রামে ১৫ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। তবে একজন সুস্থ হয়ে রোববার সন্ধ্যায় বাড়িতে ফিরেছে। ১ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনা ভাইরাসের ছোবলে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil