শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন

আখাউড়ায়  বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য ও নগদ টাকা উদ্ধার:পালিয়েছে মাদকসম্রাট কাপ্তান

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১০ মে, ২০২০, ৫.৪০ পিএম
  • ২১৭ বার পঠিত
ইসমাঈল হোসেন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) :  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী কাপ্তান ভূঁইয়ার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মাদকের বস্তার সঙ্গে রক্ষিত নগদ ৩ লাখ ৪২ হাজার ১৮০ টাকা, ১ হাজার ৩০৫ পিস ইয়াবা, ১২১ বোতল ফেন্সিডিল, ৮ কেজি গাঁজা ও ৪০ বোতল স্কফ সিরাপ উদ্ধার করা হয়।মাদক ব্যবসায়ী কাপ্তান ভূঁইয়া আখাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়ার ভাতিজা।শনিবার (৯ মে)সন্ধায় উপজেলার সীমান্তবর্তী দক্ষিণ ইউনিয়নের কুড়িপাইকা গ্রামে গঙ্গাসাগর ২৫বিজিবি ক্যাম্পের জওয়ানরা অভিযান চালায়। অভিযানের খবর পেয়ে কাপ্তানসহ তার আরো সহযোগী আপন তিন ভাই পলায়ন করে। এ ঘটনায় আখাউড়া থানায় পলাতক দেখিয়ে ওই ৪ জনের বিরুদ্ধে মাদক মামলা দায়ের করেছে বিজিবি। আসামীরা হলেন ছোট কুড়িপাইকা গ্রামের মৃত আবদুল আজিজের ৪ ছেলে যথাক্রমে মো: কাপ্তান মিয়া(৪০),মোঃ: নজু মিয়া (৫০),মো: কায়কোবাদ (৩২)ও কাউসার মিয়া (৩৮)।বিজিবি সূত্র জানায়,শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী কাপ্তানের বাড়িতে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন মাদকের চালান প্রবেশ করার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফকিরমুড়া বিজিবি ক্যাম্পের জওয়ানদের সঙ্গে নিয়ে গঙ্গাসাগর ২৫বিজিবি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার রবিউল ইসলাম শনিবার সন্ধায় অভিযান চালায়।গঙ্গাসাগর বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার নায়েব সুবেদার রবিউল ইসলাম জানান, অভিযানের টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা ৪ ভাই পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে ওদের ৪ জনকে পলাতক আসামি করে উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য রাতেই আখাউড়া থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।এ বিষয়ে জানতে চাইলে আখাউড়া থানা অফিসার ইনচার্জ রসুল আহমেদ নিজামী বলেন,আখাউড়ার সীমান্ত এলাকায় মাদক চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর অবস্থান নিয়েছি।অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil