বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

কমলগঞ্জে সেচ্ছাসেবকদল নেতা জমির উদ্দিনের লেবু ফলনে সফলতা অর্জন

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০, ৩.২৫ পিএম
  • ১৫৬ বার পঠিত

শাহ মোঃ মোতাহির আলী, কমলগঞ্জ, (মৌলভীবাজার) :  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে লেবু চাষে সফলতার মুখ দেখেছেন কমলগঞ্জ উপজেলা সেচ্ছাসেবকদলের আহবায়ক মোঃ জমির উদ্দিন। হতাশার আঁধার কাটিয়ে আলোর সন্ধান যেন পেয়েছেন জমির উদ্দিন। কমলগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাল্লারপার গ্রামে তার বাসস্থান। তার পিতা মোঃ আমীর আলী ছিলেন একজন দরিদ্র কৃষক। জমির উদ্দিন জানান, ২০০২ সালে এস, এস, সি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হবার পর দ্বিতীয়বার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার মত কোন অর্থ ছিল না। ২০০৩ সালে এইচ,এস,সি’র ফরম পূরণের টাকা বাবা দিতে ব্যর্থ হন। এমতাবস্থায় সংসারের হাল ধরার জন্য আগ্রহী প্রকাশ করেন। পরিবারের অভাব অনটনের দিকে তাকিয়ে সংসারের হাল ধরার জন্য তাকে ছুটতে হয় জীবিকার অন্বেষণে। কোন এক নিকট আত্বীয়ের কাছ থেকে মাত্র ৫ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে প্রথমে শুরু করেন জালানী কাঠের ব্যবসা। এভাবেই সংসারের দায়িত্ব নিজ কাঁধে নেন। এই ব্যবসা করে কিছুটা উপার্জন হলেও কিন্তু হতাশা কাটেনি। এই জ্বালানী কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে তিনি পরিচিত হয়ে উঠেন মাঝের ছড়াসহ বিভিন্ন এলাকার লেবু বাগান মালিকদের সাথে এবং তাদেরই পরামর্শে একসময় তিনি সিদ্ধান্ত নেন লেবু চাষের।

অতঃপর ২০১৫ সালে পদ্মছড়া এলাকার বাসিন্দা দু‘জন চা শ্রমিকের বসত বাড়ীর আঙ্গিনায় শুরু করেন কাগজী লেবুর চাষ। তাদের বসতবাড়ীর অব্যবহিত প্রায় আড়াই একর জমি ১৫ বছরের জন্য বার্ষিক ১০ হাজার টাকা করে প্রদানের শর্তে বন্ধুবান্ধবদের কাছ থেকে ঋন করে ৬০ হাজার টাকা সংগ্রহ করে লেবুচাষ শুরু করেন। তারপর থেকে আর তাকে পেছনে দিকে তাকাতে হয়নি, সেখান থেকেই সফলতার যাত্রা শুরু হয়। ৬০০ টি লেবু গাছ থেকে প্রতি বছর প্রায় পাঁচ লাখ টাকার লেবু বিক্রি করেন। ২০১৮ সালের শেষের দিকে লেবু গাছে কলম কাটা শুরু করেন। এ বছর প্রায় ১০০০ হাজার কলম কাটেন। ইতোমধ্যে ৯০০ টি কলম বিক্রি করেছেন ৫০ টাকা দরে। পাশাপাশি তিনি তার খামারে নাগা মরিছ, লাউ, কুমড়া, করলা ও কলাসহ বিভিন্ন সাথী ফসলেরও চাষ করেছেন। এসব সাথী ফসল বিক্রয় বাবদ বছরে তার আয় হচ্ছে আরও প্রায় লক্ষাধিক টাকা। লেবু চাষ এবং কলম কেটে বিক্রি করে এখন স্বাবলম্বী জমির উদ্দিন। তার সংসারে স্ত্রী, এক ছেলে এবং বাবা, মা ও এক ছোট ভাইকে নিয়ে সুখের সংসার চলছে। সংসারে আর কোনো অভাব অনটন নাই। আগে অন্যের জমিতে কাজ করতে হতো তার, এখন তার লেবু বাগানে শ্রমিক কাজ করে। জমির উদ্দিনের জীবনের হতাশা দূর হয়েছে। তা দেখে মিজান মিয়া, রমজান মিয়া, জহির মিয়া, আনোয়ার, সাঈদ মিয়াসহ আরও ২০ জন লেবু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। উপজেলা কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মতে, জমির উদ্দিন খুব ভালো চাষী, তার পরিশ্রমে তাকে সফলতা বয়ে এনেছে। তার চাষ দেখে এলাকার অনেকের মধ্যে উৎসাহ উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। তারাও লেবু চাষ শুরু করেছেন। উপজেলা কৃষি বিভাগ সর্বদা তাদের পাশে থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil