শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় ১৭৮৫ পিস ইয়াবাসহ, র‍্যাবের হাতে আটক (১) জন ভৈরবে গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-১৪ অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম(এমপি) চিরদিন বেঁচে থাকবে জনসাধারনের মাঝে-চরফ্যাশন বিএমএসএফ এক প্রবাসীর কাছ থেকে ৩ লক্ষ্য টাকা নিয়ে উধাও সিলেটের শাহজাহান প্রতারক গরিব অসহায় মানুষ আমার বন্ধু  চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ওয়াছির উদ্দিন আহমেদ (কাওছার) ভৈরবে অন্তসত্বা কল্পনা নামে (বুদ্ধি প্রতিবন্ধি) কিশোরীর রহস্য জনক মৃত্যু জুড়ীতে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক স্থাপনে প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি করতে পারবে না সাফারি পার্ক হবেই হবে পরিবেশমন্ত্রী বড়লেখায় আওয়ামীলীগের নতুন অফিস উদ্ভোধন করলেন পরিবেশ মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন মাওলানা আইয়ুব আলী ছিলেন এক বাতিঘর  জুড়ীত তিনটি গরু ও ১ পিকআপ গাড়ি উদ্ধার দুইজন কুখ্যাত চুরি আটক

কলাপাড়ায় ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে রাখাইন সম্প্রদায়ের পাল্টা সংবাদ সম্মেলন

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২০, ৮.২৫ পিএম
  • ১৯৬ বার পঠিত

মাইনুদ্দিন আল আতিক, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) বেলা ১১ টার দিকে কলাপাড়া সাংবাদিক ফোরাম কার্যালয়ে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে পাল্টা সংবাদ সন্মেলন করেছে উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের রাখাইন সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ।

এর আগে গত ১৫ নভেম্বর স্থানীয় প্রেসক্লাবে কতিপয় ভুমিদস্যু জমির মালিকানা দাবি করে মিথ্যা সংবাদ সন্মেলন করেছে বলে অংচোলা মাতবর দাবি করেছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী জেলা পরিষদ সদস্য আসলাম হাওলাদার, মোঃ রুবেল সিকদার, মোঃ ফোরকান মৃধা, অংশে মাতুব্বর, হাচিং মং তাং, মংখেন চো, মং মং, মংচোম্যান, থম্রাউসহ বিভিন্ন রাখাইনপাড়া থেকে আসা ওই সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ।

কলাপাড়া সাংবাদিক ফোরাম কার্যালয়ের সদস্য জসিম উদ্দিন মানিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অংচোলা মাতুব্বর বলেন, ‘১৫ নভেম্বর উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বিভিন্ন দাগে জমির মালিকানা দাবি করে সংবাদ সন্মেলন করেছে মোঃ আবু সাঈদ হাওলাদার ও মোঃ ইসমাইল খানসহ আরও ৪ জন। এদের মধ্যে আবু সাঈদের চাচাতো ভাই উপ-সচিব মোঃ এনামূল হক। তার নাম ভাঙিয়ে রাখাইন সম্প্রদায়ের জমি জোর-জবরদস্তি করে দখলের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এদের ভয়ে রাখাইন পরিবারের লোকজন স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারছে না। বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সংখ্যালঘু রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রাপ্য জমি জালিয়াত চক্রের হাত থেকে রক্ষার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে বলে তার বিরুদ্ধেও সংবাদ সন্মেলনে মন্তব্যে করেছে ওই জালিয়াত চক্রের সদস্যরা।’

তিনি আরও বলেন, ‘জে. এল নং ১৮, মৌজা- ছোট বালিয়াতলী, এস. এ খতিয়ান নং ১৯/১১৮ তথা বি. এস ৪৪ নং খতিয়ানের বিভিন্ন দাগে রেকর্ডীয় মালিক আইওয় মগনী ১ আনা অংশের মালিক। এস. এ ১৯৫ তথা বি. এস ১০৮৭ নং খতিয়ানের ১ আনা অংশের মালিক সিলাও মগ। সোনাপাড়া মৌজায় ৯৫ নং খতিয়ানের ১ আনা অংশের মালিক সেলুমা মগনী গং। তেগাছিয়া মৌজায় ১৮২/১৭৭ তথা ৪৮৪/৪৮৫ নং জমাখারিজ খতিয়ানের ১ অংশের মালিক সাইমাচিং মগনী। উপরোক্ত খতিয়ানের রেকর্ডীয় মালিকদের ওয়ারিশগণ থাকিয়া আমরা বিছু জমি বিক্রি করেছি এবং বাকি জমিতে আমরা চাষাবাদক্রমে বাড়ি-ঘর এবং আমাদের ধর্মীয় বৌদ্ধ মন্দিরসহ বাগান বাড়ি করে বসবাস করছি। মোঃ আবু সাঈদ হাওলাদারসহ কতিপয় ভূমিদস্যু আমাদের এই শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে বিঘ্ন ঘটানোরে জন্য ভুয়া কাগজপত্র সৃষ্টি করে আমাদের নামে ২৪৯/২০১৯, ৪০৩/২০১৯. ২৭২/২০২০, ৩৮৮/২০২০, ৩২৭/২০১৮, ৫১/২০১৮ দেওয়ানী মামলা করে হয়রানী করে আসছে। উক্ত মামলা চলমান আছে। অপরদিকে, কলাপাড়া বন্দর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এলাকার জনপ্রিয় ব্যক্তি দিদার উদ্দিন আহমেদ মাসুম। তিনি রাখাইন সম্প্রদায়ের বিপদে-আপদে অনেক আগে থেকেই এগিয়ে এসেছেন, এখনো আসছেন। তার বাঁধার কারণে জালিয়াত চক্র বেপরোয়া হয়ে উঠতে পারছে না। তার নাম উল্লেখ করে সংবাদ সন্মেলনে মিথ্যা বানোয়াট প্রচারনা চালানো হয়েছে। এদের ইন্দনদাতাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

এসময় কলাপাড়া সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এস এম আলমগীর হোসেন, দপ্তর সম্পাদক নূরুল আমিন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাইনুদ্দিন আল আতিক, সদস্য ফোরকান তালুকদার, খাইরুল তালুকদার ও মোঃ জুলহাস মোল্লা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে আজই যোগাযোগ করুন, 👇👇

মোবাইলঃ
+601121343215 (ইমু) (হোয়াটসঅ্যাপ)

মোবাইলঃ 01707177591 (ইমু) (হোয়াটসঅ্যাপ)

ই-মেইলঃ- rupantornewsbd@gmail.com

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil