রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

চরফ্যাসনের শশিভূষণ পতিতা নারীর সাথে রাতে অবৈধ মেলামেশাকালে আটক ২

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২০, ৯.১৯ পিএম
  • ২১০৮ বার পঠিত

এম হাসান লিটন, স্টাফ রিপোর্টারঃ

ভোলা চরফ্যাসন উপজেলার শশিভূষণ থানার আওতাধীন ১১নং রসুলপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড অসামাজিক কার্য্যকলাপের অভিযোগে গত ২৯/০৪/২০২০ইং রাত ৯.৩০ মিনিটের সময় অবৈধ পতিতা নারীর সাথে মেলামেশাকালে আপত্তিকর অবস্থায় গ্রামবাসী দুই পতিতা প্রমিক কে আটক করে পরে তাদের কে স্থানীয় ১১ নং রসুলপুর ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ডের দুলাল মেম্বার এবং সাবেক ১১ নং রসুলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এর ভাই নান্নু মাতাব্বার এর মারফতে নিয়ে যাওয়া হয়।

আটক মোঃমহিউদ্দিন (৩৮)১১ নং রসুলপুর ইউনিয়ন এর ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা।অপরজন মোঃআলমগীর দালাল এয়াজপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা। পতিতা নারীর বাড়ি ১১নং রসুলপুর ইউনিয়নের হাজী আব্দুর রহমান এর ছেলে মোঃ হাসেমের স্ত্রী মোসাঃ খালেদা (৩২)তার ৪ টি সন্তান রয়েছে।

জানা যায়, গত বুধবার দিবাগত রাতে আনুমানিক ৯.৩০ মিনিটের সময় ১১ নং রসুলপুর ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ডের হাজী আব্দুর রহমান পুত্র বঁধু মোসাঃ খালেদা শশুর বাড়ীর নিজ ঘরে আনাগোনা টের পেয়ে আপত্তিকর অবস্থায় শ্বশুর বাড়ী ও স্থানীয়রা তাদের উভয়কে আটক করে। ঘটনাটি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

এলাকাবাসী জানান, হাজী বাড়ীর ঐ হাসেমের বউয়ের ব্যাপারে এলাকাবাসীর আগের থেকেই বিভিন্ন খারাপ দিক রয়েছে এবং সে পতিতা। একাধিক ছেলের সাথে এই খালেদা আক্তারের অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে।

খালেদার স্বামী থাকাকালীন বউয়ের চারিত্রিক রঙ ঢং নিয়ে বহুবার পারিবারিক কোন্দলে জড়িয়েছেন। স্বামীকে রেখে সময়ে অসময়ে বাহিরে চলে যাওয়া দিনভর পরপুরুষের সাথে ঘুরাফেরা নিয়েও প্রায় ঝগড়া বিবাদ হয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী আরো জানান, স্বামী বোবা লোক তাই সে কিছু বোঝে না, তাই সে সব সময় বাজারে থাকে। এই সুযোগে একাধিক ছেলেরা বিভিন্ন সময়ে তার বাড়ীতে আসতো। রাত্রি যাপন করতো এবং বিভিন্ন পরপুরুষের সাথে মিলামেশা করে বলে এলাকা বাসী জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil