বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন

জনপ্রতিনিধি নন তবু ও সেবাদানে অতুলনীয় দৃষ্টান্ত

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ জুন, ২০২০, ৬.৪৫ পিএম
  • ২১৫ বার পঠিত

শিব্বির দেওয়ান:

কমলনগরে করোনা সংকটে বিপদগ্রস্ত মানুষ যখন সেবা পেতে আকুল ব্যাকুল। ঠিক তখন ক্ষুধার্ত মুখে হাসি ফুটাতে বিপদগ্রস্ত মানুষের বিপদ দূর করতে অতন্দ্র প্রহরী হয়ে নিবেদিত নিরালায় মানব সেবায় অতুলনীয় উদাহরন জনতার এই দুই প্রিয় মুখ। মানবতার ফেরিওয়ালা হয়ে প্রশংসিত।করোনা সংকটে একের ভেতর অধিক সেবায় জননন্দিত।এই মহতিরা, সমাজ দেশ জাতি ভাবুকেরা, কিন্তু জনপ্রতিনিধি নন তবু ও তাদের সেবা নিঃস্বার্থ মনের বহিঃপ্রকাশ। সেবা বিলাসে মানবতা জয়ে সেবার ব্রতে অভিযাএী। পথ অনেক যেতে হবে বহুদূর।তবু ও তারা আপোষহীন পথিক।স্বপ্নে জয়ে নাছোড়বান্দা। মানবপ্রেমের আলিঙ্গনে এরা আবদ্ধ হতে চায় ভালোবাসায়।
ভালোবাসা পেতে ভালোবাসা দিতে এরা অঙ্গিকারবদ্ধ।শোষনের বিরুদ্ধে শোষিতের পক্ষে এদের সংগ্রাম চিরকাল।এরা মহাকালের অভিযাএী।কমলনগরে সেবাদানে এই দুই মহতি উজ্জল। বদলে যাওয়ার বদলে দেওয়ার প্রত্যয়ে আলোকবাতি।আলোক ধারায় আলোকিত হবে দেশ জাতি।
করোনা সংকট তিন মাসের অধিক। এই মহা সংকটে বিরামহীন সেবাদানে রং বে রংঙে বেদনাকে হতাশাকে সুষমসেবায় করেছে সাফল্যমন্ডিত। ঈদে সামগ্রী ভিতরণ ও ইমাম মুয়াজ্জিন ঈদ উপহার প্রদান।
ঈদের বারতা নিয়ে হেসে উঠে চাঁদ।ঈদ উৎসব করোনা সংকটে মলিন বিবর্ণ।
বিবর্ণ মলিন অনাহারী মুখে হাসি ফুটাতে মহতি উদ্যোগ গ্রহন করেন মানবতাবাদী আবুল কালাম আজাদ।বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও জনহিতেষী পরোপকারী মানব।ঈদের খুশির বারতা ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে নিজেকে সঁপে দিলেন জনমানব সেবায়।
এ যেন সম্প্রীতির সেতুবন্দনে মেলবন্ধন
হৃদয়ের টানে হৃদয়ের আকুতি। এ যেন ভালোবাসার নিদর্শন।
করোনা সংকটে খাদ্য সহায়তা সাংবাদিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে পিপিই প্রদান।ঈদে হতদরিদ্র দের ঈদ উপহার সরবরাহ।অনাথ শিশুদের ঈদ পোষাক উপহার। সর্বশেষ হটলাইন সেবা অব্যহত রেখেছেন। জনকল্যাণে বজায় রেখেছেন সেবা।
আবদুর রহমান দিদার করোনা সংকটে নিজেকে সেবার মাধ্যমে তুলে ধরেছেন অত্যন্ত নিঁপুন ভাবে।হৃদয়ের টানে হৃদয় মেলে সেবা দিয়েছেন উজার করে। নিজ অর্থে কমলনগরের কাদিরা ইউনিয়ন ফলকন পাঠারির হাট সাহেবের হাট জাঙ্গালিয়া সহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে তথা বিন্দ্যানন্দের অনুদানের ১০০০প্যাকেট খাদ্যদ্রব্যাদি হতদরিদ্রদের মাঝে নিজে সরেজমিনে থেকে ভিতরন করেন।মাঝিদের মাঝে নৌকা ভিতরন।এতিম সন্তানকে দোকানঘর সহ অর্থ সহায়তা করেন যা বিন্দ্যানন্দের দেওয়া।সব মিলিয়ে সেবামূলক কাজ ভালোই সম্পাদন করেছেন।
দুই জনই জনপ্রতিনিধি নন তবু ও জনবান্ধব হয়ে সেবায় ব্রতে মানবতার কান্ডারী।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil