মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গঙ্গাচড়ায় প্রতিপক্ষের মারপিটে আহত ৪ নারী

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৬ আগস্ট, ২০২০, ৩.৩৯ এএম
  • ৭৪ বার পঠিত

মোঃ আরিফ শেখ, রংপুর প্রতিনিধি:

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের মারপিটে বৃদ্ধা নারী ৪ জন নারী গুরুত্বর আহত হয়েছে। গুরুত্বর আহত ২ নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর ২ জন স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আহতদের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের মনিরাম সর্দারপাড়ার এরশাদুল হক এর পৈত্রিক ও ক্রয় সূত্রে ভোগ দখলীয় জমিতে একই এলাকার মফিজুল ইসলাম চটকু ও তার ছেলেরা নিজেদের অংশ রয়েছে দাবি করায় উভয়ের মাঝে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ জমি মাপযোগ করে সীমানা নির্ধারণ করে দেয়। কিন্তু মফিজুল ও তার ছেলেরা এতে সন্তোষ্ট না হয়ে তারা পুনরায় এরশাদুলের জমি দখলের চেষ্টা করলে আবার উভয়ের মাঝে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়।

বিষয়টি স্থানীয়ভাবে সমাধানের লক্ষ্যে এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ দিন তারিখ নির্ধারণ করে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার পরামর্শ দেয়। এলাকার ব্যক্তিবর্গের কথা উপেক্ষা করে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে এরশাদুলের ছেলেরা বাহিরে থাকার সুযোগ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মফিজুল, তার ছেলে সুলতান, মমিন, কমিন, ছেলের বউ সুইটি, লিপি, নাতি রবিউল, নাতনি সুমি জোট হয়ে এরশাদুলের বাড়িতে গিয়ে নারীদের এলোপাতারী মারপিট করে। তাদের মারপিটে এরশাদুলের বৃদ্ধ স্ত্রী হাসনা বানু, ছেলের বউ মাসুদা বেগম, আলেয়া খাতুন ও মেয়ে চায়না বেগম রক্তাক্ত জখম করে মাসুদার শ্লীলতাহানী ঘটিয়ে ৫৬ হাজার টাকার মূল্যের স্বর্ণের চেইন গলা থেকে খুলিয়া নিয়ে চলে যায়। তাদের আত্মচিৎকারে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে বৃদ্ধা হাসনা বানু ও মাসুদা কে গঙ্গাচড়া হাসপাতালে ভর্তি করায় এবং আলেয়া ও চায়না প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা গ্রহণ করছে।

এঘটনায় এরশাদুলের ছেলে বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে থানায় একটি এজাহার দাখিল করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil