বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৫:১২ পূর্বাহ্ন

জুড়ী শাখা ব্যাংক করোনা ভাইরাসের আওতামুক্ত? নাকি সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে খোলা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১১ মে, ২০২০, ৪.০৭ পিএম
  • ১০৮ বার পঠিত
মোঃ জাকির হোসেন, জুড়ী উপজেলা প্রতিনিধি (মৌলভীবাজার) মৌলভীবাজার জুড়ী উপজেলায় অনেক ব্যাংক রয়েছে কি করোনা ভাইরাসের জুড়ী সাগরনাল ইউনিয়নের কাপনা পাহাড় চা বাগানের মানুষ এখনও সচেতন হচ্ছেন না মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলা’র সাগরনাল ইউনিয়নের কাপনা পাহাড় চা বাগানের মানুষ এখনও সচেতন নয়, মানছেন না আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও আজ জুড়ি শাখা’র সোনালী ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ জনসমাগম দেখতে পাওয়া যায়, জুড়ী উপজেলা’র কলেজ রোডস্থ স্থানে’র অবস্থা খুবই খারাপ, জুড়ী উপজেলার জনসাধারণের একটাই দাবি, সকল প্রকার জনসমাগম থেকে বিরত রাখতে প্রশাসনকে অনুরোধ জানান। সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে আমাদের ব্যাংকগুলো যে খোলা, ব্যাংকের ভিড়ও যে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য যেকোনো ভিড় বা জমায়েতের মতো একইরকম ঝুঁকিপূর্ণ এটা নিয়ে কোথাও কেউ তো কোন কথা বলছে না! কে আসেন না ব্যাংকে? কার নেই ম্যানেজারের চেম্বারে প্রবেশ অধিকার? কোন গ্রাহককে ব্যাংক সেবা না ফেরত পাঠিয়ে দেয়? দুঃস্থ, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, দলিত, হরিজন, হিজড়া সম্প্রদায় থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষ আসেন। বৈদেশিক রেমিটেন্স নিতে আসেন রেমিটেন্স যোদ্ধাদের পরিবার পরিজন। প্রবাসীরা দেশে আসলে ব্যাংকে তাদের আসতে হয়ই। এই সকল স্তরের মানুষের অনেকেরই সঠিকভাবে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার গুরুত্ব জানা নাই, হাঁচি কাশির শিষ্টাচার জানা নাই এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সকল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনাও সম্ভব না। ব্যাংকারদের স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির কথা নাই বা ভাবলেন। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য ব্যাংক বন্ধ রাখার কথা বলছেন না কেউ কেন? অনেক রকম সমালোচনা তো করছেন অনেকে, এই পরিস্থিতিতে ব্যাংক বন্ধ রাখার দাবী জানাচ্ছেন না কেন
জুড়ী শাখা ব্যাংক করোনা ভাইরাসের আওতামুক্ত? করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে খোলা মোঃ জাকির হোসেন, জুড়ী উপজেলা প্রতিনিধি (মৌলভীবাজার) মৌলভীবাজার জুড়ী উপজেলায় অনেক ব্যাংক রয়েছে কি করোনা ভাইরাসের জুড়ী সাগরনাল ইউনিয়নের কাপনা পাহাড় চা বাগানের মানুষ এখনও সচেতন হচ্ছেন না মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলা’র সাগরনাল ইউনিয়নের কাপনা পাহাড় চা বাগানের মানুষ এখনও সচেতন নয়, মানছেন না আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও আজ জুড়ি শাখা’র সোনালী ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ জনসমাগম দেখতে পাওয়া যায়, জুড়ী উপজেলা’র কলেজ রোডস্থ স্থানে’র অবস্থা খুবই খারাপ, জুড়ী উপজেলার জনসাধারণের একটাই দাবি, সকল প্রকার জনসমাগম থেকে বিরত রাখতে প্রশাসনকে অনুরোধ জানান। সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে আমাদের ব্যাংকগুলো যে খোলা, ব্যাংকের ভিড়ও যে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য যেকোনো ভিড় বা জমায়েতের মতো একইরকম ঝুঁকিপূর্ণ এটা নিয়ে কোথাও কেউ তো কোন কথা বলছে না! কে আসেন না ব্যাংকে? কার নেই ম্যানেজারের চেম্বারে প্রবেশ অধিকার? কোন গ্রাহককে ব্যাংক সেবা না ফেরত পাঠিয়ে দেয়? দুঃস্থ, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, দলিত, হরিজন, হিজড়া সম্প্রদায় থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষ আসেন। বৈদেশিক রেমিটেন্স নিতে আসেন রেমিটেন্স যোদ্ধাদের পরিবার পরিজন। প্রবাসীরা দেশে আসলে ব্যাংকে তাদের আসতে হয়ই। এই সকল স্তরের মানুষের অনেকেরই সঠিকভাবে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার গুরুত্ব জানা নাই, হাঁচি কাশির শিষ্টাচার জানা নাই এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সকল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনাও সম্ভব না। ব্যাংকারদের স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির কথা নাই বা ভাবলেন। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য ব্যাংক বন্ধ রাখার কথা বলছেন না কেউ কেন? অনেক রকম সমালোচনা তো করছেন অনেকে, এই পরিস্থিতিতে ব্যাংক বন্ধ রাখার দাবী জানাচ্ছেন না কেন

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil