বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
চরফ‍্যাশনে মাদকসহ চারজন গ্রেফতার উত্তর চরমানিকা লতিফিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ ইচ্ছার উদ্যোগে হেফজখানায় আল-কোরআন উপহার প্রদান মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ভৈরবে মিথ্যা মামলায় আসামী করার প্রতিবাদে মানববন্ধন, বিক্ষোভ ও সংবাদ সম্মেলন ভৈরবে পুলিশ হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার বিজয় দিবসে এসটিএসে ফ্রি চিকিৎসা পেলো ৭ ঠোঁট কাটাসহ পাঁচশতাধিক মানুষ ধর্ষন ও অশ্লীল ভিডিও ধারণে শশিভূষণ থানায় মামলা-গ্রেফতার-১ ইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে বিজয় দিবস উদযাপন অনলাইন পত্রিকা সংবাদ চিত্র’র আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

ঢীন আমেরিকার বাণিজ্য যুদ্ধ ও করোনার আবির্ভাব  

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০, ৩.২৪ পিএম
  • ১০৩ বার পঠিত

সাজ্জাদ হোসেন: বিশ্ব যখন নতুন শতাব্দী ও সহস্রাব্দে পা রাখলো বিশ্ব মনে হয় এক নতুন পৃথিবীর মুখোমুখি হলো। নতুন দুই উঠন্ত পরাশক্তির আবির্ভাব উপলব্ধি করল।প্রাচীন চৈনিক সভ্যতার গণচীন ও মহেঞ্জাদারো -হরোপ্পা ও ইন্দুস নদীর তীরের সিন্ধু সভ্যতার ভারত। ঠান্ডা যুদ্ধে রাশিয়ার তুলনামুলক দুর্বল অর্থনীতিকে রাশিয়ার পতনের মূল কারন হিসেবে অর্থনীতিবিদরা মনে করেন।ইরাক ও লিবিয়া যুদ্ধ ভুল ছিল। বরং ইরান আক্রমণ সঠিক হতো বলে আমেরিকা অনুভব করছে।দুই হাজার আটের বিশ্বমন্দার ধকল আমেরিকা এখনো পুরোপুরি কাটিয়ে উঠতে পারেনি।আমেরিকার সৃষ্ট মুক্ত বাজার অর্থনীতির তত্ত্বের ফায়দা লুটে নিলো ঘুমন্ত ও আড়ালে থাকা গণচীন।চীন বিশ্বের জন্য খুলে দিলো তার বানিজ্য দরজা ।চীন পরিণত হলো বৈশ্বিক কারখানাতে।সকল ধরনের কনজুমার পন্য তথা ইলেকট্রনিক পণ্য, তৈরী পোষাক, কম্পিউটার, মোবাইল ফোনসহ এমন কোনো পণ্য নেই যা চীনে প্রস্তুত হয়না।

চীনের দক্ষ, সস্তা, পরিশ্রমী বিশাল শ্রমিক জনসংখ্যা এবং প্রযুক্তির বিকাশ চীনকে করে তুলেছে অপরিহার্য ও অগ্রাহ্য শ্রমবাজারের প্রস্তুতকারক জাতি হিসেবে।চীনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি রকেটগতিতে ঊর্ধ্বমুখী হতে থাকে যা অব্যাহত থাকলে আগামী দশ বছরে আমেরিকার অর্থনীতিকে ছাডিযে যাবে বলে অর্থনীতিবিদরা ধারণা করে আসছিলেন। ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হবার পরেই চীনকে আক্রমণ করে বললেন যে চীন আমেরিকার অর্থনীতিকে ধর্ষণ করছে।দুই দেশের বানিজ্য ভারসাম্যহীন হয়ে পডলো। উভয়ের ঠান্ডা বানিজ্য যুদ্ধ স্পষ্ট হয়ে পড়ল।

এইতো কিছুদিন আগেই আমেরিকা চীনকে একটি বানিজ্য চুক্তিতে সাক্ষর করিযে নিয়েছে। এরপর ভারতে এসে ২১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র বানিজ্য পাকাপোক্ত করে গেছে। এরপরই এলো করোনা তথা কোভিড ১৯। চীনই হলো করোনা আক্রান্ত প্রথম দেশ। চীন কি উপলব্ধি করতে পেরেছিলো যে এটা বায়োলজিক্যাল এ্যাটাক। হয়তো তাই! তাই চীন দ্রুত চিকিৎসা ব্যবস্হা গ্রহন করে যতো দ্রত সম্ভব পরিস্হিতি সামাল দেযার চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে  অনেকটা সফলতাও পায় ।চীন আজ জানিযেছে যে পরিস্হিতি এখন স্বাভাবিক এবং ট্রেন ও অন্নান্য সরকারি পরিবহণ চালু করেছে। কিন্ত প্রকারন্তরে চীনের প্রবৃদ্ধি সত্যিই থেমে গেছে। সকল রপ্তানি অর্ডার বাতিল হযেছে।

যদি কাল্পনিকভাবে ধরে নেই আমেরিকাই এই বায়োলজিক্যাল এ্যাটাকের ভিলেন। তাহলে কিছু প্রশ্ন সামনে চলে আসে। কেন আমেরিকা এই পথ বেছে নিলো? তাহলে বেশকিছু প্রশ্ন সামনে চলে আসে। সেগুলো হতে পারে এরকম ১।সামরিক অভিযানে আমেরিকা হয়ত চীনের সঙ্গে পেরে উঠবেনা ২।সামরিক অভিযান হবে দীর্ঘমেয়াদী ও ব্যযবহুল ৩।ডলারের মূল্য তলানিতে গিয়ে ঠেকবে ফলে আমেরিকার আমদানি মূল্য বেডে যাবে ৪।২00৮ সালের বিশ্ব মন্দার প্রভাব এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি ৫।৩য় বিশ্বযুদ্ধ এড়িয়ে যাচ্ছে আমেরিকা।

এদিকে ভারতীয় গনমাধ্যমে অবশ্য চীনকে দোষারোপ করেছে এবং অনুমানের ভিত্তিতে দাবি করেছে যে চীনই করোনা সারা বিশ্বে ছডিযেছে।অবশ্য চীন আমেরিকাকে দোষারোপ করেছে। অবশ্য আমেরিকায়ও করোনায় মৃত্যু ঘটেছে অনেকের।হযতো আমেরিকা নিরবে মেনে নিচ্ছে এ মৃত্যু নয়তো বিশ্ব প্রশ্ন তুলবে আমেরিকায় করোনা নেই কেন? নতুন একটা প্রশ্ন উঠে আসতে পারে কে হবে করোনার ভ্যাকসিনের  আবিস্কারক? যেই হোকনা কেন ভ্যাকসিনের বাজার সৃস্টি না হলে কি ভ্যাকসিন উদ্ভাবন করে বানিজ্যিক ফায়দা লুটতে পারবে পূজিবাদী আমেরিকা ও তার দোসর দখলদার রাস্ট্র ইসরাইল? ইসরাইল-আমেরিকাতো চিকিৎসা বিজ্ঞানে অনেক এগিয়ে আছে। হযতোবা তারা এই ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পরেই তারা এই কুকীর্তি ঘটিয়েছে।যাতে চীনকেও ধরাশায়ী করা যায় আবার ভ্যাকসিন বিক্রি করেও বিশ্বকে শাসন ও শোষন করা যায়।

তবে চীন কি নতুন পরাশক্তি নয়? তাদের আছে বিশাল অর্থনীতি, সুবিশাল আয়তন, বিশাল দক্ষ শিক্ষিত- প্রশিক্ষিত জনশক্তি। পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ সামরিক বাহিনী আর আমেরিকার চাইতেও অধিক ডলার রিজার্ভ। চীন কি এই শক্তি ও সম্পদ নিয়ে নতুন পরাশক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। করোনা হযতো সামযিকভাবে চীনকে একটু শ্লথ করে দিবে। কিন্তু চীনকে কি আদৌ আর থামিয়ে দেয়া সম্ভব হবে?

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil