শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০২:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভৈরবে তেয়ারীরচরে এডভোকেট আবুল বাসারের নির্বাচনী গণসংযোগ ও মতবিনিময় সভা ভৈরবের সাদেকপুর ইউনিয়নবাসীর সাথে সরকার সাফায়েত উল্লাহ’র নির্বাচনী মতবিনিময় সভা ভৈরবে ৩ প্রতিষ্টান সিলগালা ৬০ লাখ টাকার জাল ধ্বংস বড়লেখা ফাউন্ডেশন ইউ কে উদ্যোগে আলোচনা সভা ও নৈশভোজ অনুষ্ঠান শয়তানের চ্যালেঞ্জ ও আল্লাহর ক্ষমার নমুনা ভৈরবে র‌্যাবের হাতে ভারতীয় ৫ লক্ষাধিক ট্যাবলেট ও ৯৭ পিস ভারতীয় কাতান শাড়ী উদ্ধার ভৈরবে এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরন লক্ষ্মীপুরে বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে বড়লেখা পল্লী বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল নিয়ে গ্রাহকদের মানববন্ধন বড়লেখা মানবসেবা সংস্থার উদ্যোগে সিলিং ফ্যান বিতরণ

তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শকের বিরুদ্ধে  অভিযোগ

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১, ৩.৪৪ পিএম
  • ৬৩ বার পঠিত

 

আরিফ শেখ,রংপুর ব্যুরোঃ রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অনিয়ম, ঘুস গ্রহন, হয়রানি ও নারী কর্মীদের সঙ্গে অশ্লীল আচরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অফিস সূএে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কাছে গত ২৪ /০৮/২০২১ ইং একজন ভুক্তভুগী নারী স্বাস্থ্য কর্মী লিখিত অভিযোগ জানান। অভিযোগে ওই নারী স্বাস্থ্য কর্মী জানান, ৫ দিনের এমএইচভি ট্রেইনিং শেষ করে কর্মস্থলে যোগদান করার সময় স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুস সালাম মুঠোফোনে ওই নারীকে হাসপাতালে ডেকে নেন। সালাম ওই নারীকে ন্যাশনাল সার্ভিসে চাকুরী করার অভিযোগ দেন। ভুক্তভোগী ওই নারী ন্যাশনাল সার্ভিসের চাকুরি ছেড়ে দেয়ার ইচ্ছে পোষন করেন। কিন্তু আব্দুস সালাম তার কাছে এক সপ্তাহের মধ্যে ২০ হাজার টাকা ঘুস দাবি করেন। এরপর তিনি এও জানান যে টাকা দিলে তিনি ন্যাশনাল সার্ভিসেও চাকুরী করতে পারবে আর এতে কোন সমস্যা হবে না।

পরের দিন একই ভাবে ওই নারী এমএইচভি কর্মীকে আবারো মুঠোফোনে ডেকে নেন। হাসপাতালের পূর্ব দিকে তার অফিস হওয়ায় সেদিকে তেমন ভীড় থেকেনা। এরই সুযোগে ওই নারী এমএইচভিকে স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুস সালাম নিজ অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে বলেন, ”তোমাকে টাকা দিতে হবেনা আমার কথা শুনলে ও আমার কথা মত চললে”। এরপর নানা রকম যৌন হয়রানিমূলক বক্তব্য দেন । কথা বলতে বলতে এক সময় ঐ নারীর গায়ে হাত দেয়ার চেষ্টা করলে ওই নারী ভয়ে ও লজ্জায় নিজের সম্মান নিয়ে কোন রকম পালিয়ে যান সেখান থেকে। লোক লজ্জা ও স্বামীর সংসারের অবনতির ভয়ে কাউকে এত দিন কিছু বলিনি।

অভিযোগ পত্রটিতে ওই নারী এমএইচভি আরও জানান, স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুস সালাম তার যৌন লিপ্সা মিটাতে না পেরে ক্রোধান্বিত হয়ে তাকে জোরপূর্বক ইচ্ছার বিরুদ্ধে এইচএমভির অব্যহতি পত্রে স্বাক্ষর করিয়ে নেন । যদিওবা ঐ সময় ন্যাশনাল সার্ভিসে কর্মরত অনেকেই বিনা বাঁধায় স্বাস্থ্য কর্মি হিসেবে চাকরি করছিল।

ভুক্তভোগী ওই নারীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, “আমি ভয়ে আতংকে কাউকে কিছু বলি নাই। কিন্তু লোক মারফত জানতে পারলাম সালাম সাহেব এখনো গলাবাজি করে লোক ঠকিয়ে যাচ্ছেন। সিভিল সার্জন বরাবর আমাদের করুন কাহিনী তুলে ধরে সিএইচসিপি মাহমুদুর রহমান অভিযোগ করেন। সবাই সালামের গোমর ফাঁস করতেছে দেখেই আমি বর্তমান স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সামসুন্নাহারের কাছে লিখিত অভিযোগ করি।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সামসুন্নাহার বলেন , বিষয়টি অত্যান্ত গোপনীয় এবং ব্যক্তিগত তাই মিডিয়াকে কোন তথ্য দিতে পারছিনা বলে দুঃখিত।

উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আব্দুস সালাম ৭ মার্চ ১৯৮৯ সাল থেকে তারাগঞ্জ স্বাস্থ্য কম্পেলেক্সে ৩২ বছর ধরে চাকুরি করার সুবিধার্থে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। হাসপাতাল এলাকা পুরোটায় তার নিয়ন্ত্রনে চলে। ধুরন্ধর আব্দুস সালামকে ১ ফেব্রয়ারী ২০০০ সালে তৎকালিন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাজেদুল ইসলাম সরকারী কর্মচারী শৃঙ্খলা ও আপিল বিধির আওতায় অভিযুক্ত করে কারন দর্শাতে বলেন। উক্ত বিজ্ঞপ্তির গ্রহনযোগ্য যুক্তি প্রদর্শন করতে না পারায় তাকে কর্তব্য ও কাজে অবহেলার কারনে তিরস্কার করা হয়। সেই তিরস্কার যেন তার গায়েই বিধেনি আজবধি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil