মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন

তারুণ্যের কবি রুদ্রের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২১ জুন, ২০২০, ৪.১৬ পিএম
  • ৬৬ বার পঠিত

জোবায়ের ফরাজী,বাগেরহাট:

“বাতাসে লাশের গন্ধ” এর মত তুমুল জনপ্রিয় কালজয়ী কবিতার রচয়িতা তারুণ্য ও সংগ্রামের কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ’র ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৯১ সালের এই তারিখে ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারের বাসভবনে আকস্মিক হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৩৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরন করেন তিনি। তিনি “প্রতিবাদী রোমান্টিক কবি” হিসাবে খ্যাত ছিলেন। আশির দশকে কবিকণ্ঠে কবিতা পাঠে যে কজন কবি বাংলাদেশী শ্রোতাদের কাছে প্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি তাদের অন্যতম।

১৯৫৬ সালের ১৬ অক্টোবর তিনি বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন। তার মায়ের নাম শিরিনা বেগম, বাবার নাম শেখ ওয়াালীউল্লাহ। তাদের স্থায়ী নিবাস বাগেরহাট জেলার মংলা থানার মিঠেখালী গ্রামে। তবে পিতার কর্মস্থল ছিল বরিশাল। তাঁর বাবা পেশায় ছিলেন চিকিৎসক। ঢাকা ওয়েস্ট অ্যান্ড হাইস্কুল থেকে ১৯৭৪ সালে এসএসসি এবং ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৭৬ সালে এইচএসসি পাস করেন। অতঃপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৮০ সালে সম্মানসহ বিএ এবং ১৯৮৩ সালে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন।রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ মূলত কবি হলেও কাব্য চর্চার পাশাপাশি সঙ্গীত, নাটক, ছোটগল্পের ক্ষেত্রেও ছিলেন সমান উৎসাহী। রুদ্র চেয়েছলেন বৈষম্যহীন সমাজ ব্যবস্থা গড়ে উঠুক।

ফলে, ব্যক্তি রুদ্র ও কবি রুদ্রের সমগ্র শিল্প সাধনা ছিল দেশ, মানুষ ও মানুষ্যত্বের প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। মাত্র ৩৫ বছরের (১৯৫৬-১৯৯১) স্বল্পায়ু জীবনে তিনি সাতটি কাব্যগ্রন্থ ছাড়াও গল্প, কাব্যনাট্যসহ অর্ধ শতাধিক গান রচনা করেছেন। তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি প্রদত্ত ১৯৯৭ সালের শ্রেষ্ঠ গীতিকারের (মরণোত্তর) সম্মাননা লাভ করেন। ‘ উপদ্রুত উপকূল’ ও ‘ফিরে চাই স্বর্ণগ্রাম’ কাব্যগ্রন্থ দু’টির জন্য ‘সংস্কৃতি সংসদ’ থেকে পরপর দু’বছর মুনীর চৌধুরী সাহিত্য পুরষ্কার লাভ করেন। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও জাতীয় কবিতা পরিষদ গঠনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেন।

রুদ্রের প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ সাতটি। এরমধ্যে রয়েছে উপদ্রæত উপকূল, ফিরে চাই স্বর্ণগ্রাম, মানুষের মানচিত্র, মৌলিক মুখোশ, ছোবল ইত্যাদি। অকালপ্রয়াত রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ তাঁর কাব্যযাত্রায় যুগপৎ ধারণ করেছেন দ্রোহ ও প্রেম, স্বপ্ন ও সংগ্রামের শিল্পভাষ্য। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ঋদ্ধ পক্ঙিক্ত ‘জাতির পতাকা আজ খামচে ধরেছে সেই পুরোনো শকুন’-এর পাশাপাশি উচ্চারণ করেছেন প্রতিবাদী জীবনবোধ থেকে উৎসারিত ‘ভুল মানুষের কাছে নতজানু নই’। প্রতিবাদী এই কবি মাত্র ৩৫ বছর বয়সে কবিতার খাতা ফেলে চলে গেছেন মৃত্যু লোকের ওপারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil