শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ০৯:১৪ পূর্বাহ্ন

দশমিনা সুতাবাড়িয়া নদীর ভেরিবাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে প্লাবিত হচ্ছে বিস্তীর্ণ এলাকা

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২২ আগস্ট, ২০২০, ১১.০৭ পিএম
  • ১১১ বার পঠিত

মোঃ আরিফুর রহমান ঝন্টু, দশমিনা উপজেলা প্রতিনিধি 

দশমিনা উপজেলার রনগোপালদী ইউনিয়নের সুতাবাড়িয়া নদীর বুড়িরকান্দা নামক এলাকায় ঘূর্ণীঝড় আম্পানে ভেরিবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় এখন বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হচ্ছে কয়েক গ্রাম।

দির্ঘদিন যাবত সুতাবাড়িয়া নদীর জোয়ারে পানি বুড়িরকান্দা নামক এলাকায় বেড়িবাঁধ দিয়ে প্রবেশ করলে এলাকাবাসীর কপালে জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছে ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দশমিনা উপজেলা রনগোপালদী ইউনিয়নের সুতাবাড়িয়া নদীর ভেরিবাঁধ টি ভেঙ্গে গিয়ে দির্ঘ দেড় মাসেরও বেশি দিন ধরে এই এলাকায় প্রতিনিয়ত বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের লোনা পানি উঠানামা করছে। এই জোয়ারের লোনা পানিতে অনেকেরই ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাট তলিয়ে যায়। জোয়ারের পানির প্রভাবে ভেরিবাঁধ ভেঙ্গে গিয়ে কারো বাড়ির পুকুর,মাছের ঘের,তলিয়ে যায় এবং টানা বর্ষনে কয়েক এলাকা প্লাবিত হয়ে ফসলি জমির বীজ এর ব্যপক ক্ষয়ক্ষতির আশংঙ্কা বাড়ছে। আবার অনেকেই বসবাস করতে হচ্ছে হাটু সমান পানিতে।

এতে স্থানীয়দের ভোগান্তি বৃদ্ধি পায়। স্থানীয় মেম্বার মনির হোসেন জানান,১নং উওর রনগোপালদী থেকে শুরু করে জোয়ারের পানিতে কমপক্ষে তিন থেকে চারশত পরিবারের ও বেশি পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তাদের দুঃখ কষ্টের বুজি শেষ নেই।

স্থানীয় ১নং রনগোপালদী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এটি এম আসাদুল হক নাসির সিকদার জানান, জোয়ারের লোনা পানিতে পুকুর ও বাড়িঘর-ভাসছে। এছাড়া সুতাবাড়িয়া নদীর জোয়ারের লোনা পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে প্লাবিত হয়েছে।এছাড়াও পানিতে ভাসছে আউলিয়াপুর,পাতারচর,উওর রনগোপালদী, মৌজার চরসহ ভাসছে বিভিন্ন এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিষয়টা দশমিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে ।

এবিষয়ে দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানিয়া ফেরদৌস এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভেরিবাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের লোনা পানি প্রবেশ করার ব্যাপারটি আমার নজরে আশার পর পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ড সংশ্লিষ্টদেরকে অবহিত করা হয়েছে।ও পাশাপাশি কয়েক যায়গায় ভেরিবাঁধ গুলো ছিড়ে গিয়ে খন্ড খন্ড হয়ে দূর্ভোগে পরেছে এলাকাবাসী সে ভেরিবাঁধ গুলো আপাতত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে কাজ করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে,কাজ চলমানও রয়েছে।এবং পানির চাপ কমে গেলে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তারা ঘটনা স্থানে এসে পর্যবেক্ষণ করবেন বলে জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil