শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশ থেকে ১৫’শ ভারতীয়কে ১০টি ফ্লাইটে দেশে পাঠানো হয়েছে- হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী 

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০, ৭.০৯ পিএম
  • ১১২ বার পঠিত
ইসমাঈল হোসেন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) : করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়া নিজ দেশের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেয়া অব্যহত রেখেছে ভারত সরকার।বৃহস্পতিবার (২৮মে) সকালে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ১২৮ জন ভারতীয় নাগরিককে ভারতে ফেরত পাঠানো হয়েছে। ফেরত পাঠানো ভারতীয়রা বাংলাদেশ ভ্রমণে এসেছিল। আখাউড়া স্থলবন্দরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই কমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাস বলেন, করোনায় বাংলাদেশে আটকে পরা ১৫০০জন নাগরিককে আজ ১টি সহ মোট ১০টি ফ্লাইটে ভারতে পাঠানো হয়।
এ সময় তিনি আরো বলেন আজ ত্রিপুরা, আসাম, মেঘালয়, সীমান্ত দিয়ে ২৩০ জনকে ভারতে পাঠানো হয়। যাত্রীদের অভিনন্দন জানাতে তিনি আখাউড়া স্থলবন্দরেে উপস্থিত হন বলেও জানান তিনি।এসময় সহকারী হাইকমিশনার অনিন্দ ব্যাণার্জী উপস্থিত ছিলেন। তাদেরকে অভ্যর্থনা জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মিতু মরিয়ম, আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা।
ভারতীয়রা বাংলাদেশ ছাড়ার সময় তাদের সাথে বাংলাদেশ ও ভারত স্থলবন্দর সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে কথা বলেন হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাস। ভারতে পৌঁছে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে নিজ দেশের নাগরিকদের পরামর্শ দেন হাই কমিশনার। করোনা পরিস্থিতির জন্য দীর্ঘদিন বাংলাদেশে আটক পড়া ভারতীয় নাগরিকরা তাদের বাড়িতে যেতে পারবে বলে সন্তোষ্টি প্রকাশ করেন এবং আটকেপড়া অবস্থা থেকে উদ্ধারের জন্য তারা ধন্যবাদ জানায় হাইকমিশনের প্রতি।এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আখাউড়া-কসবা সার্কেল সহকারী পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান,বাংলাদেশ সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান নেছার আহমদ চৌধুরী,আখাউড়া থানার অফিসার ইনর্চাজ রসুল আহমদ নিজামী, আখাউড়া ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ প্রমুখ।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil