শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১১:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

বড়লেখায় শ্বশুর বাড়িতে স্ত্রীকে এসিড নিক্ষেপে খুনের চেষ্টা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে স্ত্রী

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১, ৪.৪৯ পিএম
  • ৩৫ বার পঠিত

এম. এম আতিকুর রহমানঃ

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় স্ত্রীর শরীরে পেট্রোল ও এসিড সংমিশ্রণ করে ঢেলে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করেছে পাষণ্ড স্বামী।

আজ (৪জুলাই) রোববার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার দক্ষিণভাগ (দঃ) ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের পূর্ব গাংকুল এলাকায় এ নির্মম ঘটনা ঘটে। অগ্নিদগ্ধ গৃহবধু পূর্ব গাংকুল এলাকার রফিক উদ্দিনের মেয়ে রহিমা বেগম (২৪)।

এ ঘটনায় গৃহবধুর পরিবারের পক্ষ হতে ঘাতক স্বামীকে একমাত্র আসামি করে বড়লেখা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্বামী একই ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের আরেগঙ্গাবাদ এলাকার মকবুল মিঞার ছেলে মোটরসাইকেল ইঞ্জিনিয়ার শিপন মিঞা (৩০) ঘটনার পর পরই পালিয়ে যায়। পরে থানা পুলিশ সাড়াশি অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সকালবেলা রহিমার চিৎকার শুনে ঘরে এসে রহিমার শরীরে আগুন দেখে সবাই যখন আগুন নিভাতে ব্যস্ত সেই সুযোগে ঘাতক পালিয়ে যায়।রহিমার শরীরে পেট্রোল ও এসিড সংমিশ্রণ করে ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়ায় তার শরীর প্রচন্ড জলসে যায়, চুল, পরনে থাকা কাপড় ও বিছানা জ্বলে আঙার হয়েছে।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বড়লেখা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফয়জুল ইসলাম উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে জীবন- মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ব্যাপারে রহিমার বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসক বলেছে, আমার মেয়ের শরীরের শতকরা ৮০ভাগ পুড়ে গেছে। সে বাঁচবে কিনা সন্দেহ। বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে মেয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে।

বড়লেখা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রতন দেবনাথের নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছে বড়লেখা থানা পুলিশ এবং ঘটনাস্থল থেকে ছুরি, পেট্রোল ও আনুষঙ্গিক আলামত জব্দ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil