রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন

রামগতিতে স্ত্রী-শাশুরীকে পিটিয়ে জখম

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬.২০ পিএম
  • ১৫৬ বার পঠিত

এম. শাহরিয়ার কামাল,

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে পারিবারিক কলহের জের ধরে নুরনাহার বেগম (২৭) নামে এক গৃহবধূ শাশুরী ফয়জুন্নেছা (৮০)কে পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
২৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে
উপজেলার চরপোঁড়াগাছা ইউনিয়নের কোডেক কলোনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নুরনাহার বেগম উপজেলার চর আলেকজান্ডার ইউপির মৃত নুর ইসলামের মেয়ে।
গৃহবধুর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,
গত ১৫ বছর আগে রামগতি উপজেলার চর আলেকজান্ডার এলাকার মোসলেউদ্দিনের সাথে নুর নাহারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে তিনটি সন্তানের জন্ম হয়।
বছর আগে মোসলেউদ্দিন তার স্যালকের স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে বিয়ে করে। এ নিয়ে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়।

গত কয়েকদিন ধরে স্ত্রী নুর নাহার বেগমের মধ্যে পূর্বের বিষয়াদি নিয়ে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে মোসলেউদ্দিন তার স্ত্রীকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে ।
খবর পেয়ে শাশুরী ফয়জুন্নেছা ছুটে এসে জিজ্ঞাসা করলে তাকেও পিটিয়ে জখম করে।
গৃহবধু নুর নাহার জানান,স্যালকের বউকে ভাগিয়ে বিয়ে করার প্রতিবাদ করায় মোসলেউদ্দিন তার উপর অমানুষিক নির্যাতন করে। কথায় কথায় বাবার বাড়িতে চলে যেতে বলে। তার কথায় উত্তর করায় তাকে পিটিয়ে আহত করে তার স্বামী মোসলেউদ্দীন। খবর পেয়ে মা ছুটে আসলে তাকে পিটিয়ে জখম করে।

মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত শাশুরী ফয়জুন্নেছাকে
রামগতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত ডাক্তার সারওয়ার হোসেন মাথায় ৫টি সেলাই করেন। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে অবস্থার অবনতি দেখে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরন করেন।গৃহবধূ নুর নাহার রামগতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।
কর্তব্যরত ডাক্তার জানান,ফয়জুন্নেছার মাথায় প্রচুর ইঞ্জুরি হয়েছে,প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী সদর হসপিটালে রেপার্ড করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে গৃহবধূর পারিবারিকভাবে মামলার প্রস্ততি চলছে বলে জানা গেছে।

এম.শাহরিয়ার কামাল
মোবাইল: ০১৭২৭৫৪৭৫২৩
তারিখ: ২৬-৯-২০২০

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil