শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১১:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

শ্রীমঙ্গলে এম ইদ্রিস আলীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধী কার্যক্রমের অভিযোগে প্রতিবাদ সভা

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২১ জুন, ২০২০, ৮.০৮ পিএম
  • ৫২৫ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রতিনিধিঃ 

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিছ আলীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধী কার্যক্রম এবং প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা ও অবস্থান কর্মসূচি করেছে শ্রীমঙ্গল আওয়ামী পরিবার।

এসময় এম ইদ্রিস আলীকে প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কারের দাবী ও তাকে শ্রীমঙ্গলে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হয়। আজ (২১শে জুন, রবিবার ) দুপুরে শহরের কলেজ রোড সড়ক সংলগ্ন প্রেসক্লাবের সামনে এ প্রতিবাদ সভা ও অবস্থান কর্মসূচী করা হয়।

এসময় প্রেসক্লাব সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দেয় তারা। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি জিল্লুল আনাম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এনাম হোসেন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক বেলায়েত হোসেন, সালিক আহমেদ, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তহিরুল ইসলাম মিলন, উপজেলা যুব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু তালেব বাদশা, পৌর যুব লীগের সভাপতি আকবর হোসেন শাহীন, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ চৌধুরী, সহ সভাপতি কামরুল হাসান দুলন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন রাহিদ, সভাপতি মসুদুর রহমান মসুদ, সাধারণ সম্পাদক রাজু দেব রিটন, পৌর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খসরুল আলম সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান সুজাত, সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল কান্তি দাস প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় বলা হয়, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিছ আলী শ্রীমঙ্গলে রাষ্ট্র বিরোধীদের একত্রিত করে রাষ্ট্র বিরোধী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সাংবাদিকতাকে ব্যবহার করছেন। তিনি কৌশলে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হয়ে একক আদিপত্য বিস্তারের লক্ষে প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করে দেশ বিরোধী অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। এম ইদ্রিছ আলী জামাত শিবিরের সাথে একাত্মতা করে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে গাড়িতে পেট্টল বোমা নিক্ষেপসহ বিভিন্ন দাঙ্গা হাঙ্গামায় জড়িত থাকায় ইতিপূর্বে একাধিক মামালায় আসামী অর্ন্তভুক্ত রয়েছেন। এ ছাড়াও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে হুমকি দামকি দিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন, পতিতা ব্যবসা, বন বিভাগ, মদের ডিপো ও অবৈধ ইজিবাইক ব্যবসায়ীদের কাছ চাঁদাবাজির মতো অপকর্ম চালিয়ে আসছেন। এমনকি প্রকাশ্যে সমবায় সমিতির নামে সুদের ব্যবসা করে সাধারণ মানুষের সহায় সম্বল হাতিয়ে নিচ্ছেন। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার বিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রকাশ করে তার অনুসারী বিভিন্ন সাংবাদিককে ইমেইলে সরকার বিরোধী সাজানো ও বানোয়াট তথ্য এবং বিএনপির কার্যক্রম প্রকাশের জন্য প্রেরণ করে প্রচার করাতে বাধ্য করছেন। একই সাথে ধর্মীয় অনুভুতির উপর আঘাত আনার বিষয়ে প্রায়ই উস্কানি মুলক সংবাদ প্রকাশ করে শ্রীমঙ্গলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগাচ্ছেন। তিনি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হয়ে প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সাংবাদিকদের কোনঠাসা ও বহিষ্কার করে প্রেসক্লাবের দখলে নেয়। ইদ্রিস আলী শহরের এমন কোন খাত নেই যেখান থেকে চাঁদাবাজি করছে না। আর এসব কাজে তিনি শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবকে ব্যবহার করছেন।
এসময় প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এম ইদ্রিস আলীকে অবঞ্চিত ঘোষণা করেন। এবং সাংবাদিকতার মতো মহান পেশা ও ঐতিহ্যবাহী শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব থেকে তাকে স্থায়ী বহিস্কারের জন্য দাবী জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দেন।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিস আলী, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে এগুলো অপপ্রচার ও অসত্য। প্রেসক্লাবে আমরা সবাই দলমত নির্বিশেষে মানুষের কাজ করি। এখানে সরকার বিরোধী কোন কার্যক্রম হয় না। আমি সরকার বা রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজের সাথে সম্পৃক্ত নই।

এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী বলেন, শ্রীমঙ্গলের সাংবাদিদের জন্য আজ কালোদিন। ব্যাক্তিগতভাবে আমি চাঁদাবাজ পছন্দ করিনা। সাংবাদিকতার নাম ব্যবহার করে চাঁদাবাজদের কখনোই এই প্রেসক্লাব প্রশ্রয় দেবেনা। শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের একটি অতীত ঐতিহ্য আছে। এখানে দেশ বরেণ্য সাংবাদিকরা সাংবাদিকতা করে গেছেন। সেই অতীত ঐতিহ্য একজন ব্যক্তির জন্য ম্লান হয়ে গেলো। আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ এসেছে। আমরা প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটি বসে সীদ্ধান্ত নিবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil