মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ১০:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
চরফ‍্যাশনে মাদকসহ চারজন গ্রেফতার উত্তর চরমানিকা লতিফিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ ইচ্ছার উদ্যোগে হেফজখানায় আল-কোরআন উপহার প্রদান মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ভৈরবে মিথ্যা মামলায় আসামী করার প্রতিবাদে মানববন্ধন, বিক্ষোভ ও সংবাদ সম্মেলন ভৈরবে পুলিশ হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার বিজয় দিবসে এসটিএসে ফ্রি চিকিৎসা পেলো ৭ ঠোঁট কাটাসহ পাঁচশতাধিক মানুষ ধর্ষন ও অশ্লীল ভিডিও ধারণে শশিভূষণ থানায় মামলা-গ্রেফতার-১ ইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে বিজয় দিবস উদযাপন অনলাইন পত্রিকা সংবাদ চিত্র’র আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

শ্রীমঙ্গলে মা খুন- বাবা কারাগারে অসহায় শিশুর পাশে দাঁড়ালেন পুলিশ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৩ জুন, ২০২০, ১২.৫০ এএম
  • ২২৪ বার পঠিত

মাহাদি হাসান: শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধিঃ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে মাকে খুন করে বাবা কারাগারে এমন অবস্থায় বাড়ির দুই শিশু ও বৃদ্ধাকে পুলিশ সুপারের নির্দেশে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ পৌঁছে দিলো পুলিশ। শুক্রবার ১২ জুন বিকেলে নগদ অর্থ এবং খাদ্য সামগ্রী চাল, ডাল, আটা, মুড়ি, তেল, পেঁয়াজ, চিনি, ও সেমাই তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয়।

গত সপ্তাহে রাতের কোন এক সময় একই ঘরে মা ও মেয়ে খুন হয়েছিল। ২০২০ সালের ৫ই জুনের জোড়া খুনের ঘটনাটি ছিল শ্রীমঙ্গলে ব্যাপক আলোচিত।

ঘটনার দু’দিনের মাথায় জোড়া খুনের প্রধান আসামী আজগর আলীকে আটক করে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। আসামি আজগর আলী ওই রাতে নিশংস ভাবে খুন হওয়া ইয়াসমিন আক্তার (২৫) এর স্বামী। গত (৭জুন) মৌলভীবাজার বিজ্ঞ আদালতে আসামী আজগর আলীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি মতে তার হাতেই
লোহার পাইপ দ্বারা নির্মমভাবে খুন হয় শাশুড়ি জায়েদা বেগম (৫৫) ও স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার (২৫)।

আজগর আলীর একটি ভুল সিদ্ধান্তের কারণেই দুটি অবুঝ শিশু সন্তানের জীবনে নেমে আসে অনিশ্চয়তার অন্ধকার। ৭ বছরের শিশু ইব্রাহিম ও ৫ বছরের শিশু ফাহিমের মুখের সব হাসি ও মায়ের ভালোবাসা কেড়ে নিল।

শিশু দুটি বড় অসহায় হয়ে পড়েছে এই পৃথিবীতে। মা ও নানী খুন হওয়ার পর তারা চলে যায় না ফেরার দেশে। খুনের মামলায়
বাবা আজগর আলীর স্থান হয় জেলে। দাদা মজলিস মিয়া অন্য এক মহিলাকে বিয়ে করে বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। দাদি নেওয়া বেগমও অন্য এক পুরুষকে বিয়ে করে বাড়ি ছাড়েন। অসহায় শিশু দুটির স্থান হয় বাবা আজগর আলীর দাদি অনাহারে দিন কাটানো ৭২ বছরের বৃদ্ধা ফুলচান বেগমের কাছে। যেখানে ফুলচান বেগম নিজেই কোন বেলা পেট ভরে খেতে পান না।
সেই বা কি করে খাওয়াবে অবুঝ শিশু ইব্রাহিম ও ফাহীমকে।

স্থানীয়দের মাধ্যমে শিশু ইব্রাহিম ও শিশু ফাহিম এবং বৃদ্ধা ফুলচান বেগমের অনাহারে দুর্দশায় দিন কাটানোর খবর পান মৌলভীবাজার জেলা পুলিশ সুপার। এমন খবরে পুলিশ সুপার মো.ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার) এর নির্দেশে (শ্রীমঙ্গল- কমলগঞ্জ সার্কেল) এর সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মো. আশরাফুজ্জামানের সার্বিক তদারকি ও শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুছ ছালেক এর উদ্যোগে অসহায় শিশু দুটি ও বৃদ্ধা ফুলচান বেগমের দুই মাসের খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ সিন্দুরখান ইউনিয়নের বেলতলী গ্রামে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হয়।

এসব নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী গুলি পৌঁছে দেন শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নয়ন কারকুন, উপ-পরিদর্শক মো. মুহিন উদ্দিন, এএসআই মো. নজরুল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহিদুল ইসলাম ও সমাজকর্মী মো. শহীদ মিয়া প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil