মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গল বিটিআরই এর চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যে অনিয়মের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৮ আগস্ট, ২০২০, ১০.৫০ পিএম
  • ১৮২ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি :

মিম্মা এন্টারপ্রাইজ এর ঠিকাদার বাংলাদেশ চা বোর্ডের শ্রীমঙ্গল চা গবেষণা ইন্সটিটিউটের কার্যাদেশ অনুযায়ী ২৭ লক্ষাধিক টাকার আবাসিক বাসাবাড়ির মেরামত ও সংস্কার কাজ সম্পন্ন করেন নির্ধারিত সময়ের আগেই। ১ লাখ টাকা দেয়ার পরও আরও ৫ লাখ টাকা ঘুষ না দেয়ায় ওই ঠিকাদারের কাজের বিল থেকে ১০ লক্ষাধিক টাকা কেটে ফেলেন কার্যাদেশ বাস্তবায়ন

সংশ্লিষ্ট চার কর্মকর্তা-কর্মচারী।
অনৈতিকভাবে বিল কর্তনকারীদের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী ঠিকাদার বুধবার বিকালে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, দুদক চেয়ারম্যান, চা বোর্ড চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের মহাপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযুক্তরা হলেন- শ্রীমঙ্গল চা গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বিটিআরআই) সহকারী প্রকৌশলী নয়ন আহমদ, মুখ্য বিজ্ঞানী ড. ইসমাইল হোসেন, তথ্য ও উদ্ভিদ বিজ্ঞানী সাইফুল ইসলাম ও সহকারী ফ্যাক্টরি করণিক শফিক আহমদ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর শ্রীমঙ্গল চা গবেষণা ইন্সটিটিউটের আবাসিক বাসাবাড়ি মেরামত ও সংস্কার কাজের দরপত্রের সর্বনিম্ন দরপত্রদাতা হিসেবে ২৬ জানুয়ারি প্রায় ২৭ লাখ টাকার কাজের চুক্তি স্বাক্ষর করেন বড়লেখার ঠিকাদার জিয়াউর রহমান জুয়েল। গত ২৮ জানুয়ারি তিনি কার্যাদেশ পান। কাজের গুণগতমান নিশ্চিত করে নির্ধারিত সময়ের আগেই তিনি কাজ সম্পন্ন করেন। কাজ চলাকালীন বিভিন্ন সময়ে বিটিআরআই’র কাজ সংশ্লিষ্ট চার কর্মকর্তা-কর্মচারী তাকে নানাভাবে হয়রানি করেন। কাজের বিল প্রদানের জন্য তারা ৬ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। একপর্যায়ে সহকারী প্রকৌশলী নয়ন আহমদ, মুখ্য বিজ্ঞানী ড. ইসমাইল হোসেন, তথ্য ও উদ্ভিদ বিজ্ঞানী সাইফুল ইসলাম ও সহকারী ফ্যাক্টরি করণিক শফিক আহমদ জোরপূর্বক ১ লাখ টাকা আদায় করেন। আরও ৫ লাখ টাকা না দিলে পুরো বিল দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন। ২০ জুন বিল প্রদানের কথা বলে অফিসে নিয়ে ভয়-ভীতি ও মানসিক হয়রানি করে ম্যাজারমেন্ট বুকে স্বাক্ষর আদায়ের চেষ্টা করেন সহকারী প্রকৌশলী নয়ন। প্রাপ্য বিল ২৬ লাখ ৭৮ হাজার ৭৮১ টাকার পরিবর্তে ১৬ লাখ ৫৭ হাজার ৩৫৫ টাকার বিল দেয়া হয়। বিলের আকাশ-পাতাল এ তারতম্য এবং মনগড়া ম্যাজারমেন্ট দেখে তিনি বিল গ্রহণে অসম্মতি জানান। তখন নয়নসহ ৪ জন এ টাকা না নিলে পরে একটি টাকাও দেয়া হবে না বলে ভয় দেখান। অবশেষে ব্যাংকঋণের কথা চিন্তা করে বাধ্য হয়ে তিনি বিল গ্রহণ করেন।

ঠিকাদার জিয়াউর রহমান জুয়েল জানান, শতভাগ মানসম্পন্ন কাজ করার পরও জোরপূর্বক তারা ১ লাখ টাকা আদায় করেছে। তাদের চাহিত আরও ৫ লাখ টাকা ঘুষ না দেয়ায় অনৈতিকভাবে কাজের ইচ্ছাকৃত ভুল পরিমাপ ধরে বিল তৈরি করে ওরা সংস্কার কাজের বিলের ১০ লক্ষাধিক টাকা কর্তন করেছে। নিরুপায় হয়ে তিনি এসব দুর্নীতিবাজ, অসৎ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, দুদক চেয়ারম্যান, চা বোর্ড চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার মহাপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এসব ব্যাপারে জানতে শুক্রবার দুপুরে বিটিআরআই শ্রীমঙ্গলের সহকারী প্রকৌশলী নয়ন আহমদ, মুখ্য বিজ্ঞানী ড. ইসমাইল হোসেন ও সহকারী ফ্যাক্টরি করণিক শফিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ব্যস্ততা দেখিয়ে তারা পরে কথা বলতে বলেন। অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি জানান টাকা পয়সা আমি জানি না বিটিআরই পরিচালকের সাথে কথা বলুন এরপর একাধিকবার যোগাযোগ করলে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ করায় বৃহস্পতিবার শ্রীমঙ্গল বিটিআরআই’র অভিযুক্ত মুখ্য বিজ্ঞানী ড. ইসমাইল হোসেন ভুক্তভোগী ঠিকাদার জিয়াউর রহমান জুয়েল ও অভিযোগের সাক্ষীদের হাত-পা গুঁড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন বলে ঠিকাদার জুয়েল অভিযোগ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil