রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

হলি র্আটিজান হামলার ৪র্থ বার্ষিকী :  বাংলাদেশে জঙ্গিদের বড় ধরনের ঘটনা ঘটানোর সক্ষমতা নেই: ডিএমপি কমিশনার

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০, ৩.৩৪ পিএম
  • ৭০ বার পঠিত

আসাদুজ্জামান বাবুল : হলি আর্টিসান হামলার পর আমরা একের পর এক জঙ্গি আস্তানাগুলো গুড়িয়ে দিয়েছি।জঙ্গিদের সক্ষমতা যে পর্যায়ে ছিল সেটি এখন সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে এসেছে।ইমপ্রভাইজড বোমা বানানোর মত এক্সপার্ট এখন আর নাই। যারা এইগুলো তৈরি করতেন তারা কেউ জেলে আছে অথবা বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়েছে।তাদের ছোটখাটো সক্ষমতা থাকতে পারে কিন্তু বড় ধরণের কোন ঘটনা ঘটানোর মতো সক্ষমতা নেই বলে জানিয়েছেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার শফিকুল ইসলাম বিপিএম। বুধবার (১ জুলাই) সকাল ১০টায় গুলশান-২ এর হলি আর্টিসান বেকারিতে সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহতদের প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে একথা বলেন তিনি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর সবচেয়ে বড় জঙ্গি হামলা ছিল হলি আর্টিসানে জঙ্গি হামলা উল্লেখ করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, হলি আর্টিসানে হামলার আজ ৪র্থ বছর পুর্তি হলো।আমরা এই জঙ্গি হামলায় নিহত আমাদের দুইজন সহকর্মী ও দেশী-বিদেশী নিহত নাগরিকদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছি।যারা সরাসরি এই ঘটনায় জড়িত ছিল তারা সেনাবাহিনীর অভিযানে ঘটনাস্থলে নিহত হন। এই পুরা ঘটনার সাথে যারা জড়িত ছিল পরবর্তী সময়ে আমরা তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করি এবং সবারই সাজা হয়েছে।এর মধ্যে সাতজন আদালতে আপিল করেছে। তবে এখন আপিলের শুনানি শুরু হয়নি।

ডিএমপি কমিশনার আরো বলেন, হলি আর্টিসানের ঘটনার পরে বাংলাদেশ পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা যেভাবে ঢেলে সাজানো হয়েছে। একই ভাবে যারা জঙ্গিবাদে জড়িত তাদের সক্ষমতা সম্পর্কে আমাদের একটি পরিষ্কার ধারণা তৈরি হয়েছিল। সম্মানিত নাগরিকবৃন্দকে আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, করোনাকালে স্বাভাবিকভাবে মানুষ বাসায় বেশি থাকে। তারা অনেকেই ধর্মীয় সাইটগুলোতে বেশি ভিজিট করছে। এই সুযোগ নিয়ে জঙ্গিরা ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছে। এখন পর্যন্ত আমরা তাদের প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছি। কাউকে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করতে পেরেছে বা জঙ্গিবাদের কার্যক্রমকে পরিচালনার জন্য যে ধরণের সাংগঠনিক ব্যবস্থা প্রয়োজন সেধরণের কোন সংগঠন আবার গড়ে তুলতে পেড়েছে সেরকম কোন তথ্য আমাদের কাছে নাই।

উল্লেখ্য, গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে জঙ্গি হামলায় ১৭ জন বিদেশিসহ নিহত হন মোট ২২ জন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন দুজন পুলিশ কর্মকর্তা। জঙ্গিদের গুলি ও বোমায় আহত হন পুলিশের অনেকে। পরদিন অর্থাৎ ২ জুলাই সকালে সেনা কমান্ডোদের উদ্ধার অভিযানে পাঁচ জঙ্গি নিহত হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil