বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী দিয়ে জীবন যোদ্ধা হিসেবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে দানবীর ইয়াছির মিয়া

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০, ৫.১৪ পিএম
  • ১১২ বার পঠিত

মোঃ মিজানুর রহমান পাটোয়ারী, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ-

কিশোরগঞ্জ কুলিয়ারচরে সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের কারনে মানুষ অনেকটা ঘরবন্দি হয়ে পরেছে । এ কারনে মানুষ কর্মহীন হয়ে পরায় আয় রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে । অনেকের ঘরে দু’বেলা খাবার জুটছেনা । কর্মহীন মানুষের ঘরে খাবার না থাকায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে অনেকেই । এমন সময় সরকারের পাশাপাশি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি আর পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে ভৈরব-কুলিয়ারচরের উন্নয়নের রুপকার কিশোরগঞ্জ – ৬ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও বিসিবি সভাপতি জননেতা আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়াকে নির্দেশ দেন সরকারের পাশাপাশি কর্মহীন দরিদ্র, অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ।

আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপনের নির্দেশ পেয়ে করোনা সংকট শুরু থেকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইলহাম গ্রুপের চেয়ারম্যান দানবীর আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া স্থানীয় সাংবাদিক ও তার নিজস্ব ফেইসবুক আইডি থেকে ” আমি খেলে কুলিয়ারচর বাসী খাবে ” ও ” আমার ঘরে খাবার থাকলে কুলিয়ারচর বাসীর ঘরে খাবার থাকবে ” এই ঘোষণা দিয়ে উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় সম্পূর্ণ ব্যাক্তিগত উদ্যোগে পরিবারের সদস্য ও সেচ্ছাসেবক দলের সদস্যদের মাধ্যমে নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছে ।

এরই ধারাবাহিকতায় পবিত্র ঈদ-উল- ফিতরকে সামনে রেখে গতকাল বৃহস্পতিবার ( ২১ মে ) সকাল থেকে দিনব্যাপী পৌরশহরের ৫, ৭ ও ৯ নং ওয়ার্ডে কর্মহীন দরিদ্র, অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষের ঘরে ঘরে নগদ অর্থ পৌঁছে দেন তার ছোট ভাই মোঃ রায়হান উদ্দিন রেনু ও ভাতিজা শাহাদাৎ হোসেন লিটন ।

একমাস সিয়াম সাধণার পরই পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন । ওই দিন ঈদে সবার মাঝে যেন আনন্দ ফিরে আসে । আর এ দিকে মহামারী করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে অসহায়, কর্মহীন ও খেটে খাওয়া সাধারণ শ্রমজীবি মানুষের কষ্টের কথা চিন্তা করে পরিবার প্রতি ৫’ শত টাকা করে নগদ অর্থ সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া । পৌরশহরের ৫, ৭ ও ৯ নং ওয়ার্ডে থেকে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে । ঈদের আগেই পর্যায়ক্রমে এ উপজেলায় অসহায়, কর্মহীন ও খেটে খাওয়া সাধারণ শ্রমজীবি ৫ হাজার মানুষের ঘরে ঘরে চেয়ারম্যানের দেয়া ঈদ উপহার নগদ অর্থ পৌঁছে দেয়া হবে ।

স্থানীয়রা চেয়ারম্যানের এ মহৎ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, দেশে করোনা পরিস্থিতিতে গৃহবন্ধি কর্মহীন, দুস্থ ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোটা যুগোপযোগী । জীবন যোদ্ধা হিসেবে দানবীর চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া যেভাবে উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষকে খাদ্য সামগ্রী ও অার্থিক সহযোগিতা করে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তা অতুলনীয় । তারা আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন ও আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া’র সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে পরম করুনাময় আল্লাহ রাব্বুল আল আমীনের নিকট দু’হাত তুলে দোয়া করেন ।

জানা যায়, গত ২৮ মার্চ থেকে এ উপজেলায় ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া । ইতোমধ্যে ১৫ হাজারেরও বেশী মানুষকে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ দিয়েছেন তিনি । থেমে নেই খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণ কার্যক্রম । চলমান খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণে ৩০ হাজার মানুষকে সহায়তা দেয়ার টার্গেট রয়েছে তার ।

মানুষের আর্থ সামাজিক অবস্থান চিন্তা করে নগদ পাঁচ শত টাকা করে ৫ হাজার পরিবারের মাঝে বিতরণ সহ তিন ধরণের প্যাকেট করে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন তিনি । অসচ্ছল ও কর্মহীন, নিম্ন, মধ্যবিত্ত এবং প্রবাসী, কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী এই খাদ্য সহায়তা পাওয়ার আওতায় রাখা হয় ।

প্রথম প্যাকেটে অসচ্ছল পরিবারের জন্য ৫ কেজি করে চাল, ১ কেজি করে ডাল, ১ কেজি করে পেঁয়াজ, ১ লিটার করে সোয়াবিন তেল, ১ কেজি করে আলু, ১ কেজি করে আটা ও ২টি করে সাবান সহ ৮ ধরনের পন্য রয়েছে । এ সব প্যাকেট করোনায় কর্মহীন ৫ হাজার মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয় তার সেচ্ছাসেবকরা ।

দ্বিতীয় প্যাকেট হটলাইনের মাধ্যমে তালিকা করে ১ হাজার প্রবাসী ও দুই শতাধিক কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের পরিবারের মাঝে রাতের আধাঁরে অতি গোপনীয়তা বজায় রেখে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করা হয় । প্যাকেটে খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিলো ২০ কেজি করে চাল, ২ কেজি করে আটা, ১ কেজি করে পেঁয়াজ, ২ কেজি করে আলু, ১ লিটার করে সোয়াবিন তেল, মুড়ি, লবণ ও মিষ্টিকুমড়া সহ ৯ ধরনের পণ্য । শিক্ষার্থীদের জন্য এসবের সাথে আর্থিক অবস্থা বিবেচনা করে অতিরিক্ত ২ – ৩ হাজার করে টাকা দিয়েছেন তিনি ।

সর্বশেষ তৃতীয় প্যাকেটে রয়েছে ৫ কেজি করে চাল, ১ কেজি করে আলু, ১ লিটার করে সোয়াবিন তেল, ১ কেজি করে মুড়ি, লবণ ও সাবান সহ ৬ ধরণের পণ্য । এসব প্যাকেট ৭ মে থেকে উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন সহ পৌরসভার ১৫ হাজার মানুষের কাছে পৌঁছানোর কাজ শুরু করেন আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া ।

আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া বলেন, আমি কুলিয়ারচরের সন্তান । তাই স্থানীয় সংসদ সদস্য নাজমুল হাসান পাপন ভাই কুলিয়ারচর বাসীর সুখ-দুখে সবসময় তাদের পাশে থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন । তাঁর নির্দেশে আমি আমার ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে কর্মহীনদের পাশে দাঁড়িয়েছি । যত দিন করোনা ভয়াবহতা বিদ্যমান থাকবে ততোদিন আমাদের এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil