বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

উপকূল থেকে উপজেলা ভাঙ্গন আতঙ্ক প্রতিকার নেই

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৭ মে, ২০২০, ১১.০৮ পিএম
  • ১৬৪ বার পঠিত

রূপান্তর বিডি শিব্বির দেওয়ান:

ভাইরাসের চলমান ইতিকথা, আতঙ্ক আর মহামারী।বিশ্ব অবনত মানব হৃদয় ক্ষত অবিরত। রক্তক্ষরন মরন দীর্ঘশ্বাস অভিশাপ। ক্ষুধার জ্বালা ক্ষুধা নিবারনের তীব্রতা। অনিয়ম চিকিৎসা খাদ্যের সংকট জনজীবন বিপর্যয়স্ত। করোনা ভাইরাস সংক্রমন বিত্তে সুপার সাইক্লোন আম্ফানের আঘাত প্রকৃতি জীবন মান লন্ডভন্ড। নিয়ম ধারা। তবু ও বেঁচে থাকা।
অসহায় আর দু:খকে লালন করেই সংগ্রাম করে নদী উপকূল মানুষের বেঁচে থাকার এই হলো নিত্য নৈমত্তিক জীবন চিএ। এই জীবন চিএ বেদনার আল্পনায় অঙ্কিত।
আকাশে মেঘ। গম্ভীর আকাশ মুখ। নিয়ম ধারায় মেঘের গর্জন। বাতাসের তীব্রতা ঝড় বৃষ্টি বর্ষার পূর্বাভাস নাকি নিসর্গের আভাস বলাবাহুল্য।
হে আল্লাহ ক্ষমা করুন দেশ জাতি মানবকুল উপকূল বেষ্টিত মানুষকে।
এই নদী উপকূল মানুষ আর কত সংগ্রাম করবে।
নদী উপকূলের মানুষ ভাঙ্গন খেলার সংগ্রামে নিপতিত।
ক্ষুধার সংগ্রামে নিপতিত।অধিকার আদায়ের সংগ্রামে নিপতিত।প্রকৃতির ঝড় তুফান প্রতিকূল পরিবেশে নদী উপকূল মানুষ জীবন আজীবন সংগ্রামী। জীবনমান সংগ্রামী মনোভাবে ধাবিত।উপকূল থেকে উপজেলা ভাঙ্গন আতঙ্ক প্রতীয়মান।কমলনগরের মানচিএ ভেঙ্গে ভেঙ্গে ক্ষয়ে পরে ক্রমেই ছোট হচ্ছে।মানুষের দু:খ দূর্দশার শেষ নেই।কমলনগরের কালকিনি মার্টিন সাহেবের হাট ফলকল পাঠারীর হাট তথা রামগতি সহ ভাঙ্গল খেলা চলমান। প্রতিকারে সদিচ্ছার অভাব।এই ভাঙ্গল খেলা দীর্ঘদিনের। উদ্যোগ ধীরে হাঁটে। প্রতিবাদ স্তমিত।কমলনগর রক্ষা মঞ্চ প্রতিবাদে সোচ্চার ছিলো। এখনো আছে।
আন্দোলন আন্দোলনের জায়গায় রাখুন।
আপোষকামিতা আন্দোলন নয়।
অধিকার আন্দোলন করেই পেতে নয়।তোষামোদী নয়।
রক্ষা মঞ্চ কি?মানহীন বস্তাবাঁধের প্রতিকার পেয়েছে।
বস্তাবাঁধ আছে।
কেন?নেই।
কেন এই অরাজগতা কেন এই লুটপাট।
কেন?নয় দক্ষ জনবল ধারা পরিকল্পনাতীত কাজ।
অদক্ষ লোক দিয়ে মানহীন কাজ কেন?
কাজ শেষে নিমিশেই ভেঙ্গে পরা আন্দোলনের সফলতা নয়।
রক্ষা মঞ্চের দাবী বাস্তবায়ন কতদূর।
রক্ষামঞ্চের দাবী গুলো কি?
এমপি অব: মেজর মান্নান মোনাজাত অনুষ্টানে আশার বানী শুনিয়েছে।
কমলনগর বাসী খুশি।বাস্তবতায় মহাখুশি হবে।এমপি সাহেবের মহৎ উদ্যোগ প্রশংসার দাবী রাখে।আমি আমরা এই মহৎ উদ্যোগকে স্বাগতম জানাই।
তবে ডাম্পিং কাজ অবশ্যই সেনাবাহিনী দিয়ে আধুনিকরণ দক্ষ জনবল ও পরিকল্পনামত টেকসই মানসম্মত কাজ উপহার চাই।
আশা করি কমলনগর রক্ষা মঞ্চ এই সিদান্তে আপোষহীন থাকবে।
কেননা দলীয় লোক দিয়ে বস্তা ডাম্পিং কাজ। কাজ শেষে বাঁধ ধসে পরবে।
এই মানহীন কাজ দিয়ে কমলনগর রক্ষা পাবে না।
বাঁধ ও টেকসই হবে না।ফলে উদ্যোগ বিফলে যাবে দু:খ কষ্ট কপালে থাকবে কমলনগর নি:স্ব হবে ভাঙ্গনধারা অবিরত থাকবে।
এমপি মহোদয়ের প্রতি আকুল আবেদন মিনতি কিভাবে রামগতি কমলনগরকে রক্ষা করা যায় আপনার সুচিন্তিত মনোভাবনায় রামগতি কমলনগরকে নিরাপদ রাখার প্রয়াস ব্যক্ত করছি।
নির্বাচনী প্রধান এজেন্টা নদী বাঁধ ছিলো।ভালো কাজ করে নন্দিত হবেন নিন্দিত নয়।
কর্মগুনে নিরাপদ আবাসভূমি গড়ে তুলে নদী উপকূল মানুষের আশার প্রতিফলন ঘটাবেন।টেকসই দক্ষজনবল ধারা তীর রক্ষা বাঁধ উপহার দিবেন।
আশা বিশ্বাস রাখছি।
উপকূল থেকে উপজেলা ভাঙ্গন আতঙ্ক প্রতিকার নেই।
উপকূল বেষ্টিত মানুষের জন্ম যেন আজন্ম পাপ।
কমলনগরে ভাঙ্গন চিএ চলমান।বর্ষায় ভাঙ্গনের তীব্রতা বেশি।ভাঙ্গা গড়ার প্লাবনে এখানে জীবন যাপিত।প্রতিদিনই নতুন নতুন ঘটনার জন্ম হয়। হয় স্বপ্নের বলিদান।কত শত বসত বাড়ি আবাদী জমি গুরুত্বপূর্ন স্হাপনা নদী গর্ভে হয়ে গেছে বিলিন কে রাখে কার খবর।এখানে স্বপ্ন আলোর মুখ দেখে না অন্ধকারেই হারিয়ে যায়। জন্ম সৃষ্টিতে বিনষ্ট।এখানে বাস্তবায়ন প্রতিশ্রুতিতে সীমাবদ্ধ থাকে।মানবেতর জীবনের রেশ কাটে না।জীবনের ভয়াভয়তা নির্মম।অধিকার লুট হয়।অধিকার টাকা দিয়ে ক্রয় করতে হয়।আমি কমলনগর উপকূলের হতাশাকৃত মানুষের জীবনধারনের নির্মমতার কথা বলছি।এখানে স্বপ্ন নেই। ইচ্ছের প্রতিফলন নেই।আছে ক্ষমতার দম্ভ। প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি। বাস্তবায়নে ধীর গতি উন্নয়নে ফটোসেশন।কমলনগরে ভাঙ্গন খেলা চলমান দুই যুগ।পরিকল্পনা অগ্রগতি কচ্ছব গতি।
কতটুকু অশ্রু গড়ালে আকুতি আহাজারী ক্ষতিসাধন কত দীর্ঘ হলে শুভ বুদ্ধির উদয় হবে জানিনা।আলোকিত হোক সব হারানো হতাশা গ্রস্হ জাতি। অপেক্ষা আর প্রত্যাশা বাস্তবায়নে হোক চমকময় উদাহরন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazar1254120z

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

Founder Md. Sakil